মুক্তধারা

Make quarentine “Quran Time”

সাবরিনা চাঁদনিঃ Make quarentine “Quran Time”

আসসালামু আলাইকুম ।
এবারের রামাদান নিঃসন্দেহে অন্যান্য বছরের তুলনায় ব্যাতিক্রম একটি রামাদান। মনে করে দেখেন তো শেষ কবে পুরো রামাদান পৃথিবীর সবাই ঘরে ছিল?

এ বিশেষ মাসটি আল্লাহ রাব্বুল আল-আমিন আমাদের উপহার হিসেবে দিয়েছেন আগের ভুলগুলো শুধরে ক্ষমা পাওয়ার জন্য। সাওমের মূল উদ্দেশ্য হলো তাকওয়া অর্জন করা এবং মুত্তাকি হওয়া। আর এই লক ডাউনে এই রামাদান হতে পারে একজনের জীবনের শ্রেষ্ঠ রামাদান। কারণ যথেষ্ট সময় হাতে থাকায় রোজা রাখার পাশাপাশি অন্যান্য ইবাদাতের জন্য এই কোয়ারেন্টাইন আমাদের জন্য একটি সুবর্ণ সুযোগ।

এই মাসটি মহিমান্বিত মাস, কেন জানেন?
কারণ এই মাসেই কুরআন নাযিল হয়েছিল। শুধু তাই নয়, লাইলাতুল কদরের রাত হাজার রাতের চেয়ে উত্তম কারণ এই রাতে কুরআন নাযিল হয়েছিল। মুহাম্মদ (সাঃ) শ্রেষ্ঠ রাসূল কারণ তাঁর উপর কুরআন নাযিল হয়েছে। আর আমরা অর্থাৎ উম্মতে মুহাম্মদী হলো শ্রেষ্ঠ উম্মত কারণ এই উম্মাহর জন্যই কুরআন।

যে কুরআনের কারণে এত সম্মান, সেই কুরআন কী তাহলে রামাদানে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় নয়? এই কুরআন তিলাওয়াত করা, শুদ্ধভাবে শেখা এবং এর অর্থ বোঝা কী এই মাসে আমাদের উপর কুরআনের হক নয়?

আসুন আজই আমরা প্রথম রামাদানে কুরআন অধ্যয়নের জন্য একটা রুটিন করে ফেলি।

১. তারতিলের সাথে গুণগত মান নিশ্চিত করে কুরআন তিলাওয়াত করা। (খতমের জন্য উঠে পরে না লেগে, কারণ খতমের জন্য দ্রুত পড়তে গিয়ে অশুদ্ধ উচ্চারণ হলে সাওয়াবের স্থলে গুণাহগার হতে হবে। নবী করিম (সাঃ) টেনে টেনে ধীরে সুস্থে কুরআন পড়তেন)

২. কুরআন শ্রবণ করা। অর্থাৎ, কোন সহীহ শুদ্ধ তিলাওয়াতের অডিও শোনা। যাতে উচ্চারণ গুলো আরও ভালোভাবে রপ্ত করা যায়। কুরআনের তিলাওয়াত শুনলেও সাওয়াব ।

৩. কুরআন নিজে শেখা এবং অন্যকে শেখানো। পরিবারের সদস্যরা একে অন্যকে শেখা-শেখানোয় সহায়তা করতে পারে।

৪. এই সুযোগে কয়েকটি সুরা মুখস্থ করে ফেলা। আমরা অনেকেই নামাজ পড়ি নির্দিষ্ট অল্প কিছু সুরা দিয়ে। ১১৪টি সূরার মধ্যে কয়েটি সূরা পারি আমরা? আমাদের ঝুলি কিন্তু প্রায় খালি!

৫. ঘরের ছোট্ট সদস্যদের শেষ পাড়ার ছোট ছোট সূরা গুলো শিখানো।

৬. কুরআনকে মাতৃভাষায় বুঝা অর্থাৎ আল্লাহ কী বলতে চেয়েছেন তা বুঝার চেষ্টা করা।

৭. যা শিখবো নোট করে রাখবো যেন ভুলে গেলে সাথে সাথে বের করে দেখতে পারি।

৮. নিজে যা জানবো তা অন্যকে জানাবো।

একজন জননন্দিত আলোচকের আলোচনা শুনে উদ্বুদ্ধ হয়ে লিখেছি উদ্দেশ্য শুধু আট নম্বর পয়েন্ট।

আল্লাহ রাব্বুল আল-আমিন এর নিকট কুরআনময় একটি রামাদান কাটানোর আরজি রেখে..