অনুরণন

মায়াহীন নগরে যাপন

আমি তোমাদের মত হতে চাইনি কোনোদিন,
হয়ত হতে পারবোও না!
তবু বদলাতে চেয়েছি বার বার তোমাদের মতন করে,
যেন তোমাদের শহরে আমাকে বেমানান না লাগে!
তবুও থেমে গিয়েছি বার বার,
আমার আমি’টা যে বড্ড সেকেলে!
জানো..এই শহরে সেই আমি খুব মূল্যহীন,
মুখশের আজ বড্ড প্রচলন!
আমারও আছে, তবে তোমাদের গুলোর মত নয়!
বিশ্বাস করো, আমি মোটেও সেবিকা নই..
তবু কারো যন্ত্রনা সহ্য হয় না!
মায়া হয় খুব,
কিন্তু আমার সাথে ব্যাপারটা যায় না একদম!
কারন, আমায় যে কেওই মায়া করেনা!
অনেক দিন হলো লক্ষ্য করেছি,
একটা খেলার খুব প্রচলন শুরু হয়েছে!
আমি শিখতে চেয়েছি খেলাটা,
পেরে উঠিনি!
কিন্তু মনে হচ্ছে এবার হয়ত শিখেই যাব,
আমায় হয়ত সকলে মিলে তাদের কাতারে এনেই ছাড়বে!
কিন্তু আমি যে একটু ব্যতিক্রম,
আমি কারো কাতারে নামি না,
আমি নতুন সীমানা বানিয়ে ফেলি!
যেই কাতারে আমি নেতৃত্ব দেই!
বহিরাবরণ আজকাল মানুষকে খুব টানে,
ভাল মানুষী বা শুদ্ধতা নয়!
সাদা মানুষ দেখলেই সকলে মিলে হলি শুরু করে দেয়,
যেন সাদা মানুষটাকে রঙ মাখিয়ে বর্নিল করে দিতে পারলেই তৃপ্তি!
মানুষ বড্ড লোক দেখানো কর্মকান্ডে আকৃষ্ট হয়,
প্রকৃত মানবিকতায় নয়!
তারাই নিজেরা লোককে দেখায় আর নিজেরাও লোকেরটা দেখে তৃপ্ত হয়!
এ যেন গোপন এক অভিলাষ..
এরাই আবার পরে অভিযোগ করে তাদের সাথে ঘটে যাওয়া অন্যায়ের জন্য,
কিন্তু তারাই শুদ্ধতাকে অবহেলা করে পায়ে ঠেলে দেয়!
কারন, তারা আসলে নিজেরাই জানে না,
তারা কি চায়!
আফসোস হয় তাদের জন্য..
মরিয়া হয়ে যারা হাতের মোমবাতি নিভিয়ে দিয়ে আরো আলোকিত হবার আশায় নিজ গৃহেই আগুন ধরিয়ে দিয়ে এটা আশা করে যেন আগুন তাদের স্পর্শ না করে আর ঘরটাও না পোড়ায়!
তারা ভুলে যায় ওই মোমবাতিটাও তার গৃহ জালিয়ে দিয়ে তাকেও পুড়িয়ে মারতে পারে,
কিন্তু মোমবাতিটা নিভেই যায় এক ফুঁতেই!
চুপচাপ নিভে যায় একটা তিব্র ব্যথায় মোড়ানো ধোঁয়ার সুতা ছাড়তে ছাড়তে!
আমি আর মহান আত্মা হতে চাইনা,
খুব ক্লান্ত আমি!
আজ থেকে তোমাদের আমি তা দেখাব,
যা তোমরা সত্যি দেখতে চাও আর যা তোমরা প্রকৃত অর্থে প্রাপ্য!
নিজেকে আর শাস্তি দেবো না,
অনেক তো দিলাম,
গা ভাসাঁতে আমিও জানি!
পোড়াতে তো আমিও পারি!
আমি অসহায় নই,
আমি নির্ভরশীলও নই,
হ্যা, আমি পরিস্থিতির শিকার..
তার মানে এই নয় যে আমি কঠিন হতে পারিনা!
আমি যা করি মন দিয়ে করি,
তা মন্দ হোক বা ভালো!
যা পারে, সে কিন্তু সবই পারে..
যদি পারতে চায়!
অনেক গুলো মুখশ আছে আমার কাছে,
নাহয় আরো কয়েকটা বানিয়ে নেবো!
যেমনটা যার জন্য প্রযোজ্য!
আফসোস হয়, যখন গুরুত্বের মর্ম না বোঝা মানুষ গুলো গুরুত্ব পাবার হাহাকারে গোপন আর্তনাদ করে!
তারা অতিরিক্ত হিসাব করতে করতে সত্যিকারের জীবনের হিসাবে ভুল করা শুরু করে আর সেই ভুল শুধরাতে তারা গোজাঁমিল দিতে চেস্টা করে!
তারা নিজেদের টেনে আরো আধাঁরে নামিয়ে আনে!
পাশবিক সুখে তারা নিজেদের জয়ী ভাবতে শুরু করে!
তোমাদের দেয়া চ্যালেঞ্জ আজ আমি মন থেকেই গ্রহন করলাম,
এতদিন করবো করবো করে হয়ে উঠেনি!
আমার মত করে এবার আমি প্রস্তুত হবো,
নিজের সীমানায় আমিও খেলবো!
জানো, হেরে যাওয়া মানুষগুলো একবার খেলা শিখে গেলে কিন্তু জমিয়েই খেলে!
যদিওবা আমি এমনটি চাইনি..
কিন্তু, হেরে যেতে আমি যে শিখিনি!

লিখেছেন- রাদিয়া সুলতানা