অনুরণন

ছেলেটা | স্বপ্নের শহর

আফরিন পারভেজঃ ছেলেটা তারা দেখতে অনেক ভালোবাসতো। যেখানে যেখানে বেড়াতে যেতো অনেক আগ্রহ করেই বিভিন্ন পরিস্থিতিতে রাতের আকাশে তারা দেখতো।
ছেলেটা বেড়াতেও যেত অনেক, পায়ের নীচে চাকা ছিল। শহুরে কোলাহল তার ভালো লাগতো না, কিন্তু জীবিকার তাগিদে শহরেই বাস করতে হতো। তবে যখনই সময় পেতো, তখনই শহরের কোলাহল থেকে দূরে কোথাও চলে যেত।
তাই বিভিন্ন পরিবেশে রাতের আকাশ ও দেখা হয়েছে, সমুদ্রের তীর থেকে পাহাড়ের চূড়ার আকাশ, আবার পূর্নিমার আকাশ থেকে অমাবশ্যার আকাশ। মোটামুটি সবরকম রাতের আকাশ। কিন্তু কেন জানি কখনো রাতের আকাশে তারা খসা দেখা হয়নি।
এভাবে কেটে গেল অনেক কটা বছর।
এরপর তার একটা অদ্ভুত মেয়ের সাথে বন্ধুত্ব হলো। মেয়েটার সাথে সে তার এইসব আজগুবি চিন্তাভাবনা সবই গল্প করতো। সেই গল্পের তোড়েই একদিন সে মেয়েটা বললো যে, “এতকিছু দেখা কিন্তু কখনো কেন জানি তারা খসা দেখতে পারিনি।” মেয়েটা উত্তরে বলেছিল, “প্রকৃতি আমাদের অতি আকাঙ্ক্ষীত বস্তুগুলো আমাদের মোক্ষম বিশেষ ক্ষনে উপহার দেয়, তুমিও এটা হয়তো কোনো বিশেষ মুহূর্তে দেখতে পাবে।”
এভাবেই কোন একদিন রাতে, শহরের ইট-পাথরের একটা মামুলি দালানের ছাদে মেয়েটির সাথে মুঠোফোনে গল্প করতে করতে, হুট করে ছেলেটা আকাশে প্রথম তারা খসা দেখতে পেলো। ছেলেটা খুব অবাক হয়ে বললো, ” এটা কিভাবে সম্ভব হলো!! শহরের আকাশেই শেষ পর্যন্ত এটা দেখতে পেলাম!! তাও আজ!!”
মেয়েটা উত্তর দিলো, ” আমরা আমাদের কাঙ্ক্ষিত বস্তু খুঁজতে অনেক ঘুরি অনেক বন্ধুর পথ পেরোই কিন্তু আমরা এটা ভুলে যাই প্রকৃতি সঠিক সময়ে ঠিক আমাদের কাঙ্ক্ষিত বস্তু আমাদের সামনে এনে দেবে। স্বপ্ন খোঁজার চেষ্টায় আসলে কোথায় যাওয়ার প্রয়োজন নেই, স্বপ্ন আমাদের মাঝেই লালিত আর প্রস্ফুটিত হয়। তোমার কাঙ্ক্ষিত তারা শহরের আকাশেই ছিল, আর আজ মোক্ষম ক্ষণে তোমার চোখের সামনেই খসে পরলো।