সেলুলয়েডের গল্প

অন্তিমতৃষ্ণা | বইয়ের কথা

বইয়ের নামঃ অন্তিমতৃষ্ণা

ধরনঃ উপন্যাস

প্রকাশনঃ বাংলার প্রকাশন

স্টলঃ ৩৩৭-৩৩৮; অমর একুশে বইমেলা ২০২০

সোহরাওয়ার্দী উদ্যান।

উপন্যাসে সারকথা

রজত শিউলি আর মৈনাক। এই তিন ছেলেমেয়ে নিয়ে বিমলা দেবী আর বিকাশ বাবুর সুখের সংসার। টেনেটুনে চলা ভীষণ অভাবের সংসার। তবুও সন্তানদের নিয়ে তাদের আকাশ ছোঁয়া স্বপ্ন। যেমনটা থাকে প্রত্যেক বাবা মায়ের। কিন্তু সময় বদলায়, সাথে সাথে বদলায় মানুষও। ধীরে ধীরে সন্তানেরা যতই বড় হতে থাকে, বাবা মায়ের নিঃসঙ্গতা ততই গভীর হয়ে আসে। একদিন আদরের সন্তানেরা বড় হয়ে যায়, নিজের পায়ে দাঁড়ায়, ধন সম্পদ গাড়ি বাড়ি সবই হয়। শুধু টেনেটুনে চলা সেই বাবা মায়ের জীবনের কোনো উন্নতি হয়না, অভাব শব্দটা কোনোদিনও রূপান্তরিত হয়না সচ্ছলতায়। আশার আলো কোনোদিনও ধরা দেয় না জীবনের আঙিনায় । জীবনের অন্তিম দিনগুলো কাটে অনাদর অবহেলা আর চরম নিঃসঙ্গতায় ।

কিন্তু কেন এমন হয়? আদরের সন্তানেরা – কলিজার টুকরা’রা এমনভাবে কেন বদলে যায়? কি এমন জটিলতা আছে? কি এমন স্বার্থ আছে? যা মা-বাবা আর সন্তানদের মধ্যকার এই পবিত্র – সুন্দর সম্পর্ককে গ্রাস করে ফেলে ? কেনই বা সন্তানেরা এই জটিলতা থেকে মুক্ত হতে পারেনা? নাকি ইচ্ছা করেই মুক্তি চায় না তারা?

এইসব গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন, সীমাহীন জটিলতা এবং সম্পর্কের ভাঙাগড়া সহ জীবনের নানান খুঁটিনাটি বিষয় নিয়ে দীর্ঘ কাহিনীর উপন্যাস অন্তিমতৃষ্ণা। অন্তিমতৃষ্ণা অবহেলিত উপেক্ষিত জনম দুঃখিনী মায়েদের অশ্রুজলের কথা বলবে। নিঃসঙ্গ দুঃখী বাবাদের কথা বলবে, অন্তিমতৃষ্ণা মুখোশের আরালে লুকিয়ে থাকা হাজারো অপরাধীর কথা বলবে, স্বার্থ ফুরালেই যারা জেগে ওঠে একটা সময়। অন্তিমতৃষ্ণা কথা বলবে সীমাহীন পাপ, নিরন্তর অনুশোচনা নিয়ে। বলবে সম্পর্ক এবং এর ভাঙাগড়া নিয়ে। অন্তিমতৃষ্ণা কথা বলবে প্রেম নিয়ে – বিরহ নিয়ে। বলবে প্রিয়জন আর আপনজনের মধ্যে সৃষ্ট অমীমাংসিত কিছু সমীকরণ নিয়ে। সর্বোপরি অন্তিমতৃষ্ণা হয়ে উঠবে এমন এক বই,যা হয়ে উঠবে সমাজের দর্পণ – জীবনের দর্পণ। যেখানে ধরা পরবে জীবনের খুঁটিনাটি হাজারো ভুল, অপরাধ বোধ – সীমাহীন আক্ষেপ এবং সেখান থেকে বেরিয়ে আসার অনুপ্রেরণা। ধরা পরবে সমাজের চারপাশে ছড়িয়ে থাকা সেই সকল রজত শিউলি আর মৈনাকদের চরিত্র। যারা একটা সময় বাবা মায়ের সকল অবদান ত্যাগ ভুলে গিয়ে, সম্মান ভালোবাসা আর প্রতিদানের পরিবর্তে দিয়ে যায় কেবলই অবহেলা আর বঞ্চনা।

এই বইটি সমাজের অন্তত একজন সন্তানের মনেও যদি শুভ চেতনার উদয় ঘটাতে পারে, ভুলভ্রান্তি – আক্ষেপ আর অনুশোচনার দর্পণ হয়ে উঠতে পারে, তবেই লেখকের এই উপন্যাস সার্থক হবে বলে মনে করি ।

লেখক পরিচিতি
উৎপল সরকার
সময়ের একজন প্রতিভাবান লেখক। আজীবন লিখে যাওয়ার বাসনা যার বুকের ভেতর। বইয়ের আলো পৌঁছে যাবে ঘরে ঘরে, মনে ও মননে এবং বই হয়ে উঠবে অসুন্দরের বিরুদ্ধে সুন্দরের হাতিয়ার – এই স্বপ্ন তিনি প্রতিদিন দেখেন। সাহিত্যের বিভিন্ন শাখায় লেখালেখি করলেও মূলত তিনি উপন্যাস লিখতেই স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। জীবনের শেষদিন পর্যন্ত কলম চালিয়ে যেতে চাওয়া এই লেখক মনে করেন – পৃথিবীতে কলমের চেয়ে শক্তিশালী আর কোনো হাতিয়ার নেই এবং বইয়ের চেয়ে উজ্জ্বল কোনো আলোও নেই। লেখালেখি ছাড়াও ছবি আঁকার প্রতি বিশেষ একটা ভালোলাগা আছে তার।

লেখকের প্রকাশিত অন্যান্য বইঃ
১। দ্বিতীয় মৃত্যু ( ২০১৭ )
২। যে মৃত্যুতে আক্ষেপ নেই ( ২০১৮ )
৩। তুমি এসেছিলে অবেলায় ( ২০১৯ )