সেলুলয়েডের গল্প

এ মিস্ট্রি অব ফোর্থ সেঞ্চুরি। বইয়ের কথা

বই:এ মিস্ট্রি অব ফোর্থ সেঞ্চুরি
লেখিকা: জিমি হাইসন
প্রকাশনী:ঐতিহ্য
মুদ্রিত মূল্য:৭৫০ টাকা।

ফ্ল্যাপ থেকে নেয়া:
ষোলশ বছর পূর্বে, সেন্তুসেনিয়া নদীর তীর ঘেঁষে গড়ে ওঠা গ্রীসের এক নির্জন বনে বাস করতো কাঠুরে কন্যা অ্যালেক্স। পৃথিবীতে বাবা ছাড়া আপন কেউ ছিল না তার। এক অশুভ সকাল, অ্যালেক্সের জীবনটা ওলটপালট করে দেয়। নিজ বন, নিজ রাজ্য ছেড়ে পালিয়ে যেতে হয়। বাইরের জগত সম্পর্কে অ্যালেক্সের ধারনা কিঞ্চিতই। বিপদের মুহূর্তে সর্বক্ষণ ছায়ার মত পাশে থাকে লিও। যে অ্যালেক্সকে বাঁচাতে, তাকে নিয়ে পা বাড়ায় অজানার উদ্দেশ্যে। একটা সময় অ্যালেক্সের প্রতি এক সর্বগ্রাসী মায়ায় জড়িয়ে যায় অন্য একজনের জীবন,যার সাথে জড়িত পুরো রোমান সাম্রাজ্যের ভবিষ্যৎ। নীরবে ভাগ্যকে মেনে নেয় লিও। পাওয়া যায়, অলিম্পিয়া হতে প্রেরিত পৃথিবীতে জিউসের সর্বশেষ নিদর্শনের সন্ধান। ঘটনার পরিক্রমায় চলতে থাকে পিতা-পুত্রের দ্বন্দ্ব,সিংহাসন নিয়ে ষড়যন্ত্র এবং সিনেটের অসহযোগ। উন্মোচিত হয় কিছু অযাচিত সত্যের। ঘটে যায় কিছু অনাকাঙ্খিত পরিণতি, যা অনেককে ঠেলে দেয় ধ্বংসাত্মক এক অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে।

প্লট:(এ মিস্ট্রি অব ফোর্থ সেঞ্চুরি)
কাঠুরের মেয়ের কাছে থাকে এক জোড়া জুতো, যা শুধু দামী না-সরাসরি দেবতাদের সাথে সম্পর্কিত। এই জুতোর জন্যই জীবন দিতে হয় কাঠুরেকে ঠিক মেয়ের চোখের সামনে,একা মেয়েটি তিনজন ঘাতকের কাছ থেকে কোন রকমে বেচে গিয়ে আশ্রয় নেয় তার মতই আর একটি এতিম ছেলের কাছে নাম,লিও! লিও অ্যালেক্সকে নিয়ে তার বাড়ি গ্রিস ছেড়ে পা বাড়ায় রোমের পথে,কারণ খুনিরা যে কোন মূল্যে অমূল্য জুতো হাতে পেতে চায়! রোমে পৌছে লিও কাজ নেয় এক সওদাগরের দোকানে কিন্তু সেখানেও পৌছে যায় ঘাতক দল। কিছুটা বাধ্য হয়েই ওরা যায় রাজ দরবারে বিচার এবং আশ্রয় প্রার্থী হয়ে, রাজা এবং প্রিন্স ইথান তাদের সাহায্যে এগিয়ে আসেন,সেই সাথে জুতোর সাথে যে দৈবিক যোগাযোগ আছে তাও খুঁজে বের করেন। এর পরে একে একে ঘটতে থাকে ঘটনা যা একই বিন্দুতে না থেকে ক্রমশ জাল বিস্তার করে।

আমার কথা:
বাংলা ভাষায় সাম্প্রতিক কালে এমন ফ্যান্টাসি নির্ভর এবং ইতিহাস ভিত্তিক মৌলিক উপন্যাস খুব বেশি লেখা হয়নি বলে আমার মনে হয়। ছোট ছোট ভাগে ভাগ করে খুবই দক্ষতার সাথে গতিশীল একটি জমজমাট কাহিনী উপহার দিয়েছেন লেখিকা। গল্প বিস্তারের সাথে সাথে তা ছুঁয়ে গিয়েছে গ্রিক মিথ, রোমানদের আধিপত্য, প্রেম, বন্ধুত্ব আরো অনেক কিছু। যেখানে যতটুকু দরকার ঠিক ততটুকু দেয়াতে কখনো গতি কমেনি।
এক কথায় অনবদ্য গতিশীল এবং সুন্দর ফ্যান্টাসি নির্ভর উপন্যাস, সেই সাথে অসমাপ্ত, মানে – আরো আসছে, গল্প আরো বাকি – এই সিরিজের আরো দুটি বই আসবে আগামীতে। হ্যাপি রিডিং।

লিখেছেনঃ আফরিন পারভেজ