মুক্তধারা

নিরাপদে ঘুমাতে চাই

বর্ণ, কেমন যে এক বিবর্ণ সময়ের অস্থীরতা
চেপে ধরেছে নিজেকে বুঝাতে পারছিনা !
চেনা শব্দগুলো এতটা অচেনা
এতটা অসহ্য কোনোদিন লাগেনি,
এই মূহূর্তে সিলিংফ্যানের শব্দটাকে
মনে হচ্ছে করাতের চেয়ে ভয়াবহ ।

দেয়াল ঘড়ির ঘন্টাধ্বনি, ফোনের রিংটোন,
দরজার কলিংবেল, ওভেনের টাইমিং সাউন্ড
এত এত বিকট,বিশ্রী শব্দ,
রীতিমত শব্দাতঙ্কে ভুগছি !
নিউরনের কোষে কোষে আতঙ্কিত শব্দেরা
প্রতিধ্বনি হয়ে কেবল একাকী প্রহরের যন্ত্রণা বাড়াচ্ছে।
পাশের বাড়ির খালার অসুস্থতার কান্না
রাস্তায় রিক্সার পিছু ছুটতে ছুটতে পরে গিয়ে আহত শিশুর কান্না সবই অসহ্য লাগছে।

বর্ণ, এই যন্ত্রনাময় সময় থেকে কি করে মুক্তি পেতে পারি
বলতে পারিস?
একটা সময় মনে হতো এই দেশ,
আমার জন্মভুমি জীবনের চেয়েও বেশী প্রিয় ।
আমার এই দেশ ছেড়ে পৃথিবীর কোথাও যাবোনা আমি
কিন্তুু যতই দিন যাচ্ছে, আমি যেনো পালানোর পথ খুঁজছি।

মনে আছে তোর যেদিন প্রথম সন্তান জন্ম হয়েছিলো আমার
তুই বলেছিলি
-” প্রথম কন্যা সন্তান জন্ম নেয়া বিধাতার আর্শিবাদ “!
কিন্তু আজকাল সর্বত্রই কন্যা সন্তানের এত এত চিৎকার শুনি। কেউ নিরবে, কেউ সরবে চিৎকার করছে।

এসব দেখে শুনে প্রতিমূহূর্তে আমি আমার সন্তানের নিরাপত্তাহীন জীবন থেকে মুক্তির পথ খুঁজি।
মনে হয় প্রতি মুহূর্তে আমার সন্তান আমাকে কন্যা সন্তান হয়ে জন্ম নেবার অপরাধে ধিক্কার দিচ্ছে, আর বলছে,
– আমাকে আরেকবার তোমার জঠরে একটু ঠাঁই দাও মা,
আমি একটু নিরাপদে ঘুমাতে চাই !

লিখেছেনঃ রূপকথা রুবি

( হুতুমপেঁচা শুধুমাত্র মেয়েদের ম্যাগাজিন, আমাদের কাছে লেখা পাঠাতে হলে আপনার লেখা এবং ছবি আমাদের ফেইসবুক পেইজ হুতুমপেঁচা ম্যাগাজিন ইনবক্স করুন, এছাড়াও লেখা সংক্রান্ত আপনার মূল্যবান মতামত এবং পরামর্শ আমাদেরকে কমেন্ট করে জানান। হুতুমপেঁচা-র সাথেই থাকুন।)