ব্যঞ্জন

পেয়ারার জেলি

পেয়ারার জেলি বানানোর উপকরণঃ
পরিপুষ্ট বা পাকা পেয়ারা ২ কেজি(আমার টা পাকা ও লাল পেয়ারা ছিল)
চিনি দেড় কেজি(এটা ঠিক বলা যায় না, কতটুকু রস হবে তার উপর ডিপেন্ড করবে চিনিটা)
লেবুর রস ৪ টেঃচামচ

পেয়ারার জেলি বানানোর প্রণালিঃ
পেয়ারা ধুয়ে টুকরা করে বড় পাতিলে পেয়ারা সমান পানি দিয়ে সিদ্ধ দিতে হবে।
যখন পেয়ারা সিদ্ধ হয়ে গলে যাবে তখন নামিয়ে ছেকে রস টা নিংড়ে নিতে হবে।
তারপর রস টা মেপে, যত কাপ রস হবে ততকাপ চিনি মিশিয়ে চুলায় দিতে হবে।
মধ্যম আঁচে জাল দিতে হবে আর নাড়তে হবে।
হালকা ঘন ভাব হলে লেবুর রস টা দিতে হবে।
নাড়তে নাড়তে যখন মনে হবে বেশ ঘন হয়েছে তখন এক টা পাত্রে পানি নিয়ে তাতে ফোটা ফেললে যদি অনেক জায়গা জুড়ে ছড়িয়ে পড়ে তাহলে আরো জালাতে হবে,আর যদি গোল হয়ে পড়ে তাহলে নামিয়ে নিতে হবে।এই পরীক্ষা টা পানি ছাড়া খালি পাত্রে ও করা যায়।
চুলা থেকে তরল টা নামানোর মিনিট খানেক পরেই গরম অবস্থাতেই জারে ঢেলে দিতে হবে কয়েক ঘন্টা পরে জেলি জমে যাবে।

টিপস এন্ড ট্রিক্সঃ
পেয়ারার জেলি তে মুলত রস টা নেয়া হয়, শাস টা নেওয়া হয় না কিন্তু আমি পাতলা কাপড়ে চিপে চিপে যতটা পেরেছি শাস ও নিয়েছি।
যতকাপ রস ততকাপ চিনি এটাই জেলির রেসিপি কিন্তু আমি চিনি কম দেয়,অত মিষ্টি খাওয়া যায় না। আমার সাড়ে ৮ কাপ রস হয়েছিল, ৭ কাপ চিনি দিয়েছি।
পেয়ারার জেলি কম জালালে জমবে না আবার বেশি জালালে ও ঠান্ডা হলে রাবারের মত হয়ে যাবে।
গরম অবস্থায় জারে না ঢাললে পেয়ারার  জেলি কখনো ঠিকমত জমবে না তা যত ঘন ই হোক না কেন।
জারের মধ্যে একটা চামচ রেখে গরম জেলি ঢালবেন তাহলে কাঁচের জার ফাটবে না।
যদি দেখেন ঠান্ডা হবার বেশ কয়েক ঘণ্টা পর ও পেয়ারার জেলি জমলো না তাহলে পুনরায় একটু জাল দিয়ে গরম অবস্থায় জারে ঢালুন(প্রথমবার আমি তাই করেছিলাম)
জেলি ফ্রিজে সংরক্ষণ করবেন।

অনেকে বলছেন কালার ইউজ করেছি,অসত্য বলে এখানে আমার লাভ টা কি??
সত্যি কথা বলতে কি, বিনাকালারে এমন কালার হয়েছে দেখে আমি এবং আমার ফ্যামিলি ও বেশ আশ্চর্যান্বিত!!
প্রথমবারের পেয়ারার জেলি টা সাদাটে হওয়ায় কালার দিতে হয়েছিল।

শেয়ার এবং কমেন্ট করে আমাদের “হুতুমপেঁচার – ব্যঞ্জন এর সাথেই থাকুন।

রেসিপি দিয়েছেনঃ শারমিন ইলা

( হুতুমপেঁচা শুধুমাত্র মেয়েদের ম্যাগাজিন, আমাদের কাছে লেখা পাঠাতে হলে আপনার লেখা এবং ছবি আমাদের ফেইসবুক পেইজ হুতুমপেঁচা ম্যাগাজিন ইনবক্স করুন, এছাড়াও লেখা সংক্রান্ত আপনার মূল্যবান মতামত এবং পরামর্শ আমাদেরকে কমেন্ট করে জানান। হুতুমপেঁচা-র সাথেই থাকুন।)